সুফিয়া কামাল হলের ছাত্রীরা দেখিয়েছে তাদের ক্ষমতা

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ২৯ অক্টোবর, ২০১৭ ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

বিকাল ৩টার পরে ম্যাডামরা পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২য় বর্ষের এক ছাত্রীকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। তার দোষ সে ফেসবুকে সুফিয়া কামাল হলের গ্রুপে প্রতিবাদী কমেন্ট করেছে এবং সেই স্ক্রিনশট ম্যাডামদের কাছে আছে। ম্যাডামদের ভাষ্যমতে সেই স্ক্রিনশট নাকি ছাত্রীদের কাছ থেকেই পাওয়া। ম্যাডামদের প্রশ্নের উত্তরে মেয়েটি খুবই সাহসী উত্তর দিয়েছে, “যেই স্ট্যাটাসে আমি কমেন্ট করেছি সেখানে তো আরও ৩২টা কমেন্ট আছে, আপনারা তাদেরকে ডাকছেন না কেন?”

এর পরে ম্যাডামরা তাকে যখন বলে যে ১ম নোটিশ হল থেকে দেওয়া হয় নি, তখন মেয়েটি উত্তর দিয়েছে, “আমি এবং আমার রুমমেট নিজে চোখে দেখেছি দাদুকে নোটিশ লাগাতে। সেই দাদুতো হলেই আছে এখন। আপনারা দাদুকে ডেকে জিজ্ঞাসা করেন।“

ম্যাডামরা নাকি তখন দাদুকে ডেকে জিজ্ঞাসা করেন নি। আমার প্রশ্ন, কেন?
তারপর মেয়েটি যেই প্রশ্ন করেছিল ম্যাডামদেরকে তার জন্য ম্যাডামরা প্রস্তুত ছিলেন না, “ম্যাডাম আমি কমেন্ট করেছি বলে কি এখন আমার সিট কেটে দিবেন?”

আমাদের শ্রদ্ধেয় ম্যাডামরা তখন নাকি মেয়েটিকে অনুরোধ করেছিল ২য় নোটিশ ফেসবুকে পোস্ট করার জন্য। কারণ মেয়েটি হলের একজন খেলোয়াড়, সে সবধরনের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে এবং নন-পলিটিক্যাল হওয়া সত্ত্বেও হলে তার জনপ্রিয়তা আছে।

এইসব নাটকের কি কোন দরকার ছিল?

১ম নোটিশ দেখার সাথে সাথে মেয়েরা যখন আমাকে বিষয়টা জানালো তখন আমি প্রত্যেককে বলেছি, নোটিশটা ঠিকই আছে, শুধু আদেশ না করে অনুরোধ করে লিখলেই কিন্তু মেয়েরা মেনে নিত। কেউ কোন প্রশ্নই তুলত না।

মেয়েরা যখন প্রতিবাদ করল তখন কি দাঁড়ালো? হল প্রশাসন সংশোধন করে আরেকটি নোটিশ দিল। আমার প্রশ্ন, হল প্রশাসন যদি ১ম নোটিশ না দিয়ে থাকে তাহলে সংশোধন করে ২য় নোটিশে আগের কথাগুলোই অন্যভাবে কেনো লিখে দিবে?

আর ৩য় নোটিশ দেওয়া হল তদন্ত কমিটি গঠন করে। আমরা জানি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যখনই কোন কিছু ধামাচাপা দিতে চায় তখনই এমন একটা করে তদন্ত কমিটি গঠন করে এবং ‘ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টা’ নাম লাগিয়ে দেয়।

সমস্যার সমাধান কিন্তু খুবই সহজভাবে করা যেত। হল প্রশাসন একটা নোটিশ দিয়ে ভাষাগত ত্রুটির জন্য ছাত্রীদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিলেই সব চুপ হয়ে যেত।

সমাধান তো হলই না। মাঝখান দিয়ে কি হল?
•কিছু সাংবাদিকের গায়ে ‘হলুদ সাংবাদিক’ সিল লাগল।
•কবি সুফিয়া কামাল হলের কিছু প্রতিবাদী সাধারণ ছাত্রীর গায়ে ‘বামদল’ সিল লাগল।
•কিছু ছাত্রলীগ নেতা-নেত্রী যারা সত্যটা নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিল তাদের গায়ে ‘ষড়যন্ত্রকারী কিংবা অনুপ্রবেশকারী’ এই অপবাদটা লাগল।

আমার ছাত্রলীগের ভাই-বোনরা যারা প্রশাসনের পক্ষে স্ট্যাটাস দিলেন তাদের কাছে আমার প্রশ্ন, বঙ্গবন্ধু কি আমাদেরকে এই আদর্শ দিয়ে গেছেন? বঙ্গবন্ধু কি আমাদের মিথ্যাকে সমর্থন দিতে বলেছেন?

যাই হোক শাপে বর হয়েছে একটা জিনিস, কবি সুফিয়া কামাল হলের ছাত্রীরা দেখিয়ে দিয়েছে তাদের ক্ষমতা কতখানি।

বিঃদ্রঃ যেই ছাত্রীর সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনা আমি শেয়ার করলাম তার অনুরোধেই আমি তার নাম প্রকাশ করলাম না। তার কাছ থেকে আমাদের সবারই অনেক কিছু শেখার আছে

খাদিজা হাসান মুনের ফেসবুক থেকে. . .