তরুণ প্রজন্মকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে : মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার

প্রতিবেদক : এমএন
প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ৮:৪৮ অপরাহ্ণ

নুর মোহাম্মদ : সময় ১৯৭১ সাল। মহান মুক্তিযুদ্ধ। ১৬ বছরের দুরন্ত কিশোর ছিলেন আবুল বাশার। তৎকালীন লক্ষ্মীপুর সামাদ উচ্চ বিদ্যালয়ে মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী ছিলেন। বোডিংয়ে (ছাত্রবাস) থেকে লেখাপড়া করতেন তিনি। যুদ্ধ শুরু হয়। বাংলাদেশ স্বাধীনের লক্ষ্যে যুদ্ধে যোগ দিতে প্রশিক্ষণের জন্য ভারতে যান। দেশ স্বাধীন করতে জীবনের মায়া ত্যাগ করে প্রশিক্ষণ শেষে যুদ্ধে যোগ দেন। মুক্তিযুদ্ধের সাহসী সৈনিকে পরিণত হন সেই কিশোর।

তরুণ প্রজন্মের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন- আমরা দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছি। নিজেদের অধিকার ছিনেয়ে এনেছি। তাই তরুণদের প্রতি আমার আহবান- তোমরা আগামির ভবিষ্যৎ। দেশ ও জাতির মঙ্গলের জন্য কাজ করবে। নিজ স্বার্থকে ভুলে গিয়ে অন্যের প্রতি বাড়িয়ে দিতে হবে সহযোগীতার হাত। তোমাদেরকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে। সর্বোচ্চ পড়ালেখা করে দেশ ও জাতির উন্নয়নে কাজ করবে। তোমরাই পারবে বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশকে এক উচ্চ মাত্রায় নিয়ে যেতে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার (বশির মাস্টার)। তিনি ১৯৫৫ সালের ২ জানুয়ারি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার টুমচর গ্রামের রিয়াজ উদ্দিন মুন্সি বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা তোফায়েল আহমেদ ও মা সুজিয়া বেগম। বর্তমানে তিনি লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ড বাঞ্চানগর এলাকার ল’ইয়ার্স কলোনীতে বসবাস করেন। ৪ ছেলে ও ২ মেয়ের জনক তিনি।

১৯৭৩ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন এই মুক্তিযোদ্ধা। লক্ষ্মীপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতির দায়িত্বেও ছিলেন। ৪ বার লক্ষ্মীপুর জেলা ও সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া জেলা স্কাউটের সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

এক সাক্ষাৎকারে মুক্তিযুদ্ধের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। তখন আমার বয়স ছিল ১৬ বছর। তৎকালীন লক্ষ্মীপুর সামাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের (বর্তমান লক্ষ্মীপুর আদর্শ সামাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়) মাধ্যমিক পরিক্ষার্থী ছিলাম। ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বাঙ্গালির ওপর ভয়ংকর হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে। শুরু হয় তাদের শোষন ও নির্মম নির্যাতন। তাদের নির্যাতনের রোষানলে অতিষ্ঠ ছিল বাঙ্গালি জাতি।

মুক্তিযোদ্ধা বাসার বলেন, পাকিস্তানের শোষন- নির্যাতনের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা যুদ্ধের ডাক দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর ডাকে সাড়া দিয়ে লক্ষ্মীপুর থেকে আমরা কয়েকজন ভারতের ছোত্তা খোলা ক্যাম্পে প্রশিক্ষণে যাই। আমার সাথে লক্ষ্মীপুরের তোফায়েল, তাহের, খায়ের, বাসার, আনোয়ার, জকসিন বাজারের মানিক, আজাদ, মুনছুরুল হক ওই ক্যাম্পে যোগদান করেন। সেখান থেকে আমরা পালাটানা উদয়পুর প্রশিক্ষণকেন্দ্র আরও একমাস প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি।

তিনি আরো বলেন, প্রশিক্ষণ শেষ করে আমরা জাফর ইমামদের সাথে ফেনীর পশুরাম, মুন্সিরহাট ও বেলুনিয়ায় মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করি। পরবর্তীতে আমরা হাইকমান্ডের নির্দেশে নিজস্ব এলাকায় চলে আসার প্রস্তুতি গ্রহণ করি। অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে গুণবতি হয়ে চাতারপাইয়া, চাটখিল হয়ে সোমপাড়া আসি। হোসেন আলীর (হাই কমিশনার) বাড়িতে আমরা অবস্থান করি। আক্তারুজ্জামান উকিলসহ ১৫ টি নৌকা নিয়ে আমরা ঘুরতাম। দিনের বেলায় পাট ক্ষেতে লুকিয়ে থাকতাম। রাজাকার ও পাক সেনাদের ক্যাম্প আক্রমন করার আগে পাট ক্ষেতে বসেই পরিকল্পনা করতাম। এরপর আমরা নাগেরহাটে ক্যাম্প স্থাপন করি। যুদ্ধের উত্তাল দিনগুলোতে আমিশাপাড়া, সমিতির হাট, শ্যামগঞ্জসহ উল্লেখযোগ্য স্থানে পাক হানাদার বাহিনীর সাথে মুখোমুখি যুদ্ধে লিপ্ত হই। যুদ্ধে রকেট ল্যাঞ্চারের স্পিলিন্টারের আঘাতে পায়ে বিদ্ধ হয়ে আহত হই। অবশেষে নয়মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পন করে। প্রতিষ্ঠিত হয় বাঙ্গালি জাতির স্বাধীন রাষ্ট্র বাংলাদেশ।

সবশেষ তরুণপ্রজন্মকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করার কারণেই আমাকে অনেক কিছু হারাতে হয়েছে। আমার জেঠা হাবিব উল্যা পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকারদের হাতে নিহত হন। আবদুল হাই, আবদুল্লাহ, আবু তাহেরসহ রাজাকারদের হাতে আমাদের পরিবার বিভিন্ন সময় ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এভাবেই মুক্তিযুদ্ধের উত্তাল দিনগুলোর কথা ব্যক্ত করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার (বশির মাস্টার)।

বিশেষ দ্রষ্টব্য : প্রিয় পাঠক মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানীদের নিয়ে আমাদের নিয়মিত আয়োজন ‘বীরের বাড়ির আঙ্গিনা’ নিয়মিত প্রকাশিত হবে।