২০২৩ বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্ন শ্রীশান্তের

প্রতিবেদক : এমএন/ এমএস
প্রকাশিত: ২১ জুন, ২০২০ ৩:৩৭ অপরাহ্ণ

স্বপ্ন দেখতে তো বাধা নেই। কোনো ট্যাক্স বা পয়সাও দিতে হয় না। তাই ফিক্সিংয়ের দায়ে নিষিদ্ধ ভারতের পেসার শান্তাকুমারন শ্রীশান্ত আগামী বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্ন দেখছেন। ২০১৩ সালের আগস্টে শ্রীশান্তকে নিষিদ্ধ করেছিল বিসিসিআই। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে শেষ হচ্ছে তার নির্বাসনের মেয়াদ। আগামী মৌসুমে কেরালার হয়ে রঞ্জি ট্রফিতে খেলার সম্ভাবনাও বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতেও ৩৭ বছর বয়সী শ্রীশান্ত ২০২৩ বিশ্বকাপে দেশের হয়ে খেলার স্বপ্ন দেখছেন।

আইপিএলে স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েছিলেন শ্রীশান্ত। যে কেলেঙ্কারি বিশ্ব ক্রিকেটে তোলপাড় ফেলে দিয়েছিল। তবে ২০১৫ সালে দিল্লির এক বিশেষ আদালত সব অভিযোগ থেকে শ্রীশান্তকে মুক্তি দেয়। ২০১৮ সালে কেরালা হাইকোর্ট বোর্ডের নিষেধাজ্ঞায় স্থগিতাদেশ দিলেও হাইকোর্টেরই ডিভিশন বেঞ্চ নির্বাসনের রায় বহাল রাখে। শ্রীশান্ত তখন সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন। গত বছর মার্চে তাঁর সাজার পরিমাণ কমাতে বোর্ডকে নির্দেশ দেয় আদালত। বিসিসিআই তখন শ্রীশান্তকে ৭ বছরের জন্য নির্বাসিত করে। যার মেয়াদ চলতি সেপ্টেম্বরে শেষ হতে যাচ্ছে।

সম্প্রতি কেরালার কোচ টিনু যোহানন বলেছেন যে, ফিটনেসের সমস্যা না হলে শ্রীশান্তকে দলে নেওয়ার বিষয়ে ভাবা হবে। এমন কথায় অনুপ্রাণিত শ্রীশান্ত বলেছেন, ‘এখনও বিশ্বাস করি যে আমি ২০২৩ সালের বিশ্বকাপ খেলার ক্ষমতা রাখি। এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস। নিজের লক্ষ্য নিয়ে আমি কখনই বাস্তববাদী নই। কারণ আমাদের সামনে যদি এমন অসম্ভব কোনো লক্ষ্য না থাকে, তবে আমরা সাধারণে পরিণত হব। হতাশা কাটিয়ে উঠতে প্রচুর পরিশ্রম করেছি। এমনকি মার্শাল আর্ট পর্যন্ত করেছি। আমার ফিটনেস ঠিকই আছে।’

নিষেধাজ্ঞা কাটানোর এক পর্যায়ে আত্মহত্যার কথা মাথায় এসেছিল শ্রীশান্তের। সেই সম্পর্কে বলেছেন, ‘২০১৩ সাল থেকে এর বিরুদ্ধে লড়াই করে চলছি। কিন্তু আমার পরিবার পাশে ছিল। পরিবারের জন্যই আমি লড়াইটা চালিয়ে গেছি। জানতাম যে, পরিবারের আমাকে দরকার। সেই জন্য সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যু এত কষ্ট দিয়েছে। তাছাড়া ও ভালো বন্ধুও ছিল। আমিও খাদের কিনারায় চলে গিয়েছিলাম, কিন্তু আত্মহত্যা করতে পারিনি। কারণ, যারা আমাকে বিশ্বাস করে ও ভালোবাসে, তাদের আঘাত দিতে চাইনি।’

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন