শিক্ষার্থীদের জন্য সবুজ ক্যাম্পাস রেখে গেলেন কলেজ অধ্যক্ষ

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ১৬ জানুয়ারি, ২০২০ ৯:০৭ অপরাহ্ণ

হাসান মাহমুদ শাকিল: সবুজে ঘেরা বিদ্যাপীঠ লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ। দীর্ঘ তিন বছরে হয়নি রাজনৈতিক হানাহানি কিংবা মারামারি। প্রশাসনিক ও একাডেমিক ভবনের সামনেই দীর্ঘ ফুলের বাগান। দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই ক্যাম্পাসের সবদিক সবুজে রাঙিয়ে তুলেছেন অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. মাইন উদ্দিন পাঠান।

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) তার কর্মজীবনের শেষ দিন। আর বিদায় বেলায় শিক্ষার্থীদের জন্য রেখে যাচ্ছেন তার গড়ে তোলা সবুজ ক্যাম্পাস। আগামি দিনেও ক্যাম্পাসটিকে সু-শৃঙ্খল হিসেবে অক্ষুন্ন রাখার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ভূমিকা অত্যন্ত জরুরী।

জানা গেছে, ২০১৬ সালের ২৮ ডিসেম্বর পদন্নোতি পেয়ে মাইন উদ্দিন পাঠান লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এরআগে তিনি অধ্যাপক পদে একই কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের দায়িত্বে ছিলেন। সাংস্কৃতিক চিন্তাধারার এই শিক্ষক কলেজের শিক্ষা কার্যক্রমকে গতিশীল করতে দক্ষ ভূমিকা রেখেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সরকারি কলেজে এখন আর মারামারি হয় না। ক্যাম্পাসটি অপরাজনীতি থেকেও মুক্ত হয়েছে। শিক্ষার্থীরা নিয়মিত শ্রেণিকক্ষে উপস্থিত হচ্ছে। বন্ধ হয়ে পড়া বার্ষিক ক্রিড়া প্রতিযোগীতা ও আন্ত:কলেজ ফুটবল টুর্নামেন্ট চালু করা হয়েছে। এমন পরিবর্তন মাইন উদ্দিন পাঠানের দায়িত্বের পর থেকেই চোখে পড়েছে। সম্প্রতি তার কৃতিত্বের কথা তুলে ধরে এক অনুষ্ঠানে কেঁদে উঠেছেন লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য একেএম শাহজাহান কামাল।

কলেজ প্রশাসন জানায়, মাইন উদ্দিন পাঠানের উদ্যোগে  প্রশাসনিক ও একাডেমিক ভবনের সামনে পূর্ব-পশ্চিম দীর্ঘ বাগান করা হয়েছে। কলেজে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধ কর্ণার, বঙ্গবন্ধু উন্মুক্ত মঞ্চ, কলেজের অভ্যন্তরীণ সড়ক ও দৃষ্টি নন্দন পতাকা স্ট্যান্ড তৈরি করা হয়েছে। এসেত কলেজে ছাত্র রাজনীতিতে শৃঙ্খলা । শিক্ষার্থীরাও নিয়মিত শ্রেণিকক্ষে উপস্থিত থাকে। আগের চেয়ে শিক্ষার হারও বেড়েছে।

অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র হারুনুর রশিদ বলেন, কলেজের পরিবেশ আগের চেয়ে অনেক সুন্দর। ফুল বাগান, পামগাছ ও ঝাউ গাছের সমন্বয়ে সবুজে ঘিরে আছে কলেজটি। শিক্ষার্থীরা ছাড়াও বিকেল বেলায় এখানে সাধারণ মানুষের জমায়েত দেখা যায়।

জানতে চাইলে অধ্যক্ষ প্রফেসর মাইন উদ্দিন পাঠান বলেন, দীর্ঘ কর্মজীবন শেষ হয়েছে। এটি খুব কস্টের। সবসময় প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষার্থীদের কল্যাণে কাজ করেছি। শিক্ষার্থীদের দেশের ইতিহাস জানাতে মুক্তিযোদ্ধা কর্ণার স্থাপন করেছি। কলেজটি শিক্ষার্থীদের মনের মত করে সাজাতে ফুলের বাগান করা হয়েছে। আজ সেই বাগানটি কলেজ আঙিনাকে দৃষ্টি নন্দন করে তুলেছে। শিক্ষার্থীদের জন্য আমার ভালোবাসা আজীবন থাকবে।