লক্ষ্মীপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে ২৪ হাজার রোগী

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ৩:২৩ অপরাহ্ণ

লক্ষ্মীপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালে ২৪ হাজার ১১৭ জন রেজিষ্ট্রিকৃত ডায়াবেটিস রোগী রয়েছে। ২ হাজার টাকা ফি দিয়ে রোগীকে এখানে সদস্য হতে হয়। আর এতেই চলে আজীবন চিকিৎসা। এরপর থেকে শুধু রক্ত ও সুগার পরীক্ষার জন্য ১০০ টাকা করে ফি নেয়া হয়।


বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে ডায়াবেটিক দিবস উপলক্ষে সমিতির নেতা, হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও রোগীদের উপস্থিতি র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়।


জানা গেছে, ঢাকার বারডেমের অধীনে পরিচালিত লক্ষ্মীপুরের এই হাসপাতালটিতে ২৪ হাজার ১১৭ জন রেজিষ্ট্রিকৃত রোগী রয়েছে। এসব রোগি প্রতিনিয়ত সেবা নিচ্ছে। সুগার ও রক্ত পরীক্ষার জন্য ১০০ টাকা করে ফি নেওয়া হয়।


জানা গেছে, লক্ষ্মীপুরের ব্যবসায়ী মো. দেলোয়ার হোসেন তার মায়ের স্বপ্ন পূরণের জন্য ডায়াবেটিক সমিতির উদ্যোগ নেন। বর্তমানে তিনি জেলা ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক। দেলোয়ারসহ ২৫ জন ব্যক্তির সমন্বয়ে ১৯৮৭ সালে লক্ষ্মীপুরে ডায়াবেটিক সমিতি গঠিত হয়।


জানতে চাইলে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী শিখা রাণী জানান, ৮ বছর হয়েছে তিনি রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রথমে এক হাজার ৯০০ টাকা ফি দিয়ে চিকিৎসা নিতে হয়েছে। এরপর থেকে ১০০ টাকা দিয়েই চিকিৎসা কার্যক্রম চলছে।


জেলা ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, এখানে শতকরা ৩০ শতাংশ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়া হয়। আবার গরীব রোগীদেরকেও বিনামূল্যে চিকিৎসা দিয়ে আসছি। অনেকেই নির্ধারিত ফি দিয়ে চিকিৎসা নিতে পারেন না। তাদের জন্য বিশেষভাবে ছাড় দেওয়া হয়।


লক্ষ্মীপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালের কনসালটেন্ট মো. বেলায়েত হোসেন পাটওয়ারী বলেন, ডায়াবেটিস রোগীদের নিয়মিত চিকিৎসা ও ওষুধ সেবন করতে হবে। এর থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব নয়, তবে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। নিয়মিত হাটতে ও ব্যায়াম করতে হবে। রোগীদেরকে খাবারের বিষয়েও সচেতন হতে হবে।