লক্ষ্মীপুরে সরকারি গুদামে ধান সংগ্রহে সিন্ডিকেটের পকেট ভারী

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ

বিশেষ প্রতিবেদক: লক্ষ্মীপুরে খাদ্য বিভাগের কারসাজি ও এক টন ধান বিক্রয়ে খরচ না পোষায় সরকারি গুদামে আমন ধান বিক্রয়ে অনীহা প্রকাশ করছে কৃষকরা। সেই সুযোগে সদর উপজেলার বরাদ্দ থেকে ৩০০ মেট্টিক টন ধান রায়পুর-রামগঞ্জে সমর্পন করা হয়েছে।

এতে লাভবান হচ্ছে সংশ্লিষ্ট বিভাগের অসাধু কর্মকর্তা ও ধান সিন্ডিকেট। গেল বছরও সিন্ডিকেটের ধানে গুদাম ভরপুর করা হয়েছে। কৃষিকার্ড থাকা সত্ত্বেও নানা অযুহাতে কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করা হয়নি। এতে ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হয়েছিল কৃষকরা। চলতি বছরও খাদ্য বিভাগের বিরুদ্ধে কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয়ে আন্তরিকতা নেই বলে অভিযোগ রয়েছে।


এদিকে মাত্র এক টন ধান বিক্রি করে ফসল উৎপাদনের খরচ পোষাচ্ছে না কৃষকদের। পরিমাণ বাড়িয়ে ৩ টন ধান বিক্রির দাবিতে জেলা প্রশাসককে লিখিতভাবে জানিয়েছে তারা। তবে খাদ্য কর্মকর্তা বলছেন, ঝামেলা এড়াতে ও শৃঙ্খলা বজায় রাখতেই কৃষক প্রতি এক টন করে ধান ক্রয় করা হচ্ছে।


কৃষকদের দাবি, তাদের কাছে যথেষ্ট পরিমাণ ধান মজুদ রয়েছে। কিন্তু খাদ্য বিভাগ অদৃশ্য কারণে তাদের কাছ থেকে ধান কিনতে গড়িমশি করছেন। আগামি ২৮ ফেব্রুয়ারি সরকারিভাবে ধান ক্রয়ের শেষ দিন। কিন্তু ধান কেনার জোরালো কোন ভূমিকা নিচ্ছে না সংশ্লিষ্টরা। এতে কৃষকরাও ধান বিক্রিতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন। সেই সুযোগে সিন্ডিকেটের ধান দিয়ে গুদাম ভরপুর করার পাঁয়তারা করা হচ্ছে বলে কৃষকদের অভিযোগ। তখন কম দামে অসহায় কৃষকদের স্থানীয় বাজারে ধান বিক্রিতে বাধ্য হতে হবে। একইভাবে সরকাররের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।


জানা যায়, চলতি মৌসুমে কৃষকদের কাছ থেকে সদর উপজেলার প্রতি মণ ১ হাজার ৪০ টাকা করে ২ হাজার ২০৮ মেট্টিক টন ধান ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। ১৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সাড়ে ১১শ’ মেট্টিক টন ধান ক্রয় করা হয়েছে। অপরদিকে ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ার শঙ্কায় বরাদ্দ কর্তন করে ৩০০ মেট্টিক টন জেলার রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলায় পাঠানো হয়েছে। কিন্তু জেলার ৫টি উপজেলার মধ্যে সদরে সবচেয়ে বেশি ধান উৎপাদন হয়। এ মৌসুমে সদরে ৯০ হাজার ৩০০ মেট্টিক টন ধান উৎপাদন হয়েছে। অপরদিকে রায়পুরে ৩ হাজার ৫৯৪ ও রামগঞ্জে ১৪ হাজার ৫১৮ মেট্টিক টন ধান উৎপাদন হয়েছে। কৃষকদের কাছে যথেষ্ট ধান মজুদ থাকা সত্ত্বেও সদরে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ার পেছনে সংগ্রহ কমিটিকে দায়ী করছেন সচেতন মহল।


ধান বিক্রি করতে না পারা কৃষকররা জানিয়েছেন, ধান ক্রয়ে আন্তরিকতার অভাব থাকায় লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে না। সদর উপজেলায় ধান বেশি উৎপাদন হলেও কৃষক প্রতি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে মাত্র এক টন। আর অন্যান্য উপজেলাতে ধান কম উৎপাদন হলেও সেখানে বরাদ্দ দেওয়া হয় তিন টন করে। এতে ধান বিক্রয়ে অনাগ্রহী হয়ে পড়েছে সদর উপজেলার কৃষকরা।


খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সদর উপজেলা থেকে কর্তনকৃত ৩০০ মেট্টিক টন ধানের মধ্যে রায়পুরে ১০০ ও রামগঞ্জে ২০০ মেট্টিক টন দেওয়া হয়েছে। এদিকে রায়পুরে ধান বিক্রয় হচ্ছে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে রায়পুরে সংগ্রহের বরাদ্দ বাড়িয়ে সিন্ডিকেটের কাছ থেকে ধান ক্রয় করা হচ্ছে।


অভিযোগ রয়েছে, জেলা খাদ্য অফিসের সংগ্রহ শাখার উপ-খাদ্য পরিদর্শক মাইন উদ্দিন সিন্ডিকেটের সঙ্গে আঁতাত করে সদর থেকে কর্তন করে রায়পুরে বরাদ্দ বাড়িয়ে দিয়েছে। এছাড়া জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) সাহেদ উদ্দিনকে ম্যানেজ করে রায়পুরে আরও অধিক বরাদ্দ দেওয়ার পাঁয়তারা করা হচ্ছে। সদরে ধান ক্রয়ে কঠোর নজরদারির কারণে ওই সিন্ডিকেটটি বরাদ্দ কর্তন করে রায়পুর ও রামগঞ্জে পাঠাচ্ছে।


লক্ষ্মীপুর পৌরসভার লামচরী এলাকার তালিকাভূক্ত কৃষক মারজু নুরুল্যা জানান, তার কাছে বিক্রির মতো প্রায় ১০ টনের মতো ধান রয়েছে। কিন্তু তিনি মাত্র একটন ধান সরকারি গুদামে বিক্রি করতে পেরেছেন। যথেষ্ট ধান মজুদ থাকা স্বত্বেও বরাদ্দের এক টনের বেশি বিক্রি করতে পারছেন না।
সদর উপজেলার দিঘলীর কৃষক মানিক ও আবুল হাসেম জানায়, পরিবহন খরচ বেশি পড়ায় এক টন ধান বিক্রি করে তাদের পোষাচ্ছে না। সরকারি মূল্যে তিন টন করে ধান বিক্রি করতে পারলে তাদের উপকার হত।


মান্দারী ইউনিয়নের গন্ধ্যব্যপুর গ্রামের আবদুল মান্নান বলেন, গুদামে মাত্র এক টন করে ধান নেওয়া হচ্ছে। তাই তেমন একটা আগ্রহ প্রকাশ করছি না। এছাড়া এখানে ধান বিক্রি করতে হলে পরিবহণ খরচ বেশি পড়ে।


সদর উপজেলার খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রামিম পাঠান বলেন, এক টন করে ধান নেওয়ার কারণে কৃষকরা ধান বিক্রিতে তেমন সাঁড়া দিচ্ছে না। ফলে আমাদের ধান ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হচ্ছে না।


জানতে চাইলে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) সাহেদ উদ্দিন আহম্মদ বলেন, সদরে ধান ক্রয়ে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হচ্ছে না। এতে জেলা ধান সংগ্রহ কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বরাদ্দ সমর্পন করা হয়েছে। সমর্পনকৃত বরাদ্দের ধান অন্য উপজেলা থেকে ক্রয় করা হবে। সদরে তিন টন ধান ক্রয় করতে গেলে শৃঙ্খলা বজায় থাকে না। এজন্য একটন করে ধান ক্রয় করা হয়।


এ ব্যাপারে উপজেলা পর্যায়ের ধান ক্রয় কমিটির সভাপতি ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল সাংবাদিকদের বলেন, জেলা কমিটির সিদ্ধান্তে সদরের বরাদ্দ থেকে ৩০০ মেট্টিক টন ধান অন্য উপজেলায় সমর্পন করা হয়েছে। আপাতত কৃষক প্রতি তিন টন করে নেওয়ার সুযোগ নেই। যেহেতু সদর উপজেলায় তালিকাভূক্ত তিন হাজার কৃষক রয়েছে। সেক্ষেত্রে লটারির মাধ্যমে অন্তর্ভূক্ত কৃষকরা ধান বিক্রি করতে অনীহা প্রকাশ করলে, তালিকাভূক্ত অন্য কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করা হবে।