লক্ষ্মীপুরে শীতের শুরুতেই বেড়েছে পিঠার কদর

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর, ২০২০ ১২:১১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক : চারদিকের শীতল আবহাওয়া। শীতের আমেজও পড়ছে। ঠান্ডা আবহাওয়ায় গরম গরম চিতই আর ভাপা পিঠা মুখো রোচকদের আকৃষ্ট করছে।

 

শীতের এ আমজে লক্ষ্মীপুরের ভ্রাম্যমাণ পিঠার দোকানগুলোতে ভীড় জমতে শুরু করেছে। শিশু-কিশোর-বয়োবৃদ্ধ সব বয়সীদেরকেই পিঠার দোকানে ভীড় করতে দেখা যায়। কয়েক ধরণের ভর্তা দিয়ে গরম গরম পিঠার কদর সব বয়সীদের মাঝেই দেখা যায়।

 

শীত এলেই বাজারে বাজারে কদর বাড়ে ভাপা ও চিতই পিঠার। গ্রামের বাড়িগুলোতেও পিঠা তৈরির ধুম পড়ে। নানা রকমের নানান নামের পিঠা তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে গ্রামীণ বধূরা। তবে বাজার কিংবা শহরের মোড়ে মোড়ে ভ্রাম্যমাণ দোকানে দাড়িয়ে পিঠা খাওয়ার স্বাদই আলাদা। শীতে চায়ের দোকানের ছাড়াও পিঠার দোকানকে ঘিরে বন্ধুদের আড্ডাও জমে উঠে। এ আড্ডায় পিঠা খাওয়া অনেকে নিয়মে পরিণত হয়। এজন্য এসব দোকানে পিঠার কদর বেশি।

 

রবিবার (২২ নভেম্বর) সন্ধ্যায় লক্ষ্মীপুর শহরের দক্ষিণ তেমুহনী এলাকায় ভ্রাম্যমাণ পিঠার দোকানে কয়েকজন যুবককে পিঠা খেতে দেখা যায়। আবার অনেকেই পরিবারের অন্য সদস্যদের জন্য প্যাকেট করে পিঠা নিয়ে যাচ্ছেন। সঙ্গে বিনামূল্যে পাওয়া শুটকি ও সরিষার ভর্তা নিতেও ভোলেন না তারা।

 

একই চিত্র দেখা যায় লক্ষ্মীপুর উত্তর তেমুহনী, বাগবাড়ি মোড়, ঝুমুর মোড়, বাজারের সংযোগ ব্রিজ ও তমিজ মার্কেটের সামনেসহ বেশ কয়েকটি স্থানে এসব পিঠা বিক্রি করা হচ্ছে। বেশির ভাগ বিক্রেতাই চিতই আর ভাপা পিঠা বিক্রি করছেন। আবার কোথাও কোথাও থাকছে পাটিসাপটা পিঠা।

পিঠা খেতে আসা যুবক আব্দুল আওয়াল খোকন জানান, শীত আসলে পিঠার ভ্রাম্যমাণ দোকানগুলো দেখা যায়।গরম গরম পিঠা খাওয়ার স্বাদই আলাদা। দামও তেমন না। চিতই ও ভাপা পিঠা প্রতিটি ১০ টাকা করে। এ শীতে প্রথম পিঠা খেয়ে যাত্রা করেছেন তিনি।

 

দক্ষিণ তেমুহনী এলাকায় আব্দুর রহমান ও তার দুই ছেলেকে পিঠা বিক্র করতে দেখা যায়। তার ছোট ছেলে লক্ষ্মীপুরের একটি বেসরকারি বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। আব্দুর রহমান চিতই পিঠা বানালেও তার ছোট ছেলেকে ভাপা পিঠা বানাতে দেখা যায়। আবার ছোট ছেলেই সবার কাছ থেকে টাকা বুঝে নেয়।

 

পিঠা বিক্রি নিয়ে আব্দুর রহমানের সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, এবার আজই (২২ নভেম্বর) প্রথম পিঠা বিক্রি করা শুরু করেছি। আগামী ৩ মাস প্রতিদিন পিঠা বিক্রি করবো। আমরা ভাপা পিঠা হরেক রকম পদ্ধতিতে তৈরি করি। ক্রেতা বেশি থাকলে দৈনিক ৪-৫ হাজার টাকা বিক্রি হয়। সন্ধ্যা নামতেই ক্রেতাদের সমাগম হয়। পিঠার সাথে সরিষা বাটাসহ কয়েকধরণের ভর্তা বিনামূল্যে দেওয়া হয়।

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন