রামগঞ্জে পাঠশালার পথশিশুদের পোশাক দিলেন এসআই

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ৫ নভেম্বর, ২০১৯ ৭:৩৪ অপরাহ্ণ

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে পথশিশুদের বিদ্যালয় ‘প্রচেষ্টা পাঠশালা’। সেখানে উপজেলার অসহায় ও পথশিশুদেরকে বিনামূল্যে পড়ানো হয়।

আর রবিবার তাদের জন্য বিনামূল্যে পোশাক (স্কুল ড্রেস) দিয়েছেন পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মহসিন চৌধুরী। চাকরির পাশাপাশি নিজের ব্যক্তিগত উদ্যোগেই তিনি অসহায় ও দরিদ্রদের সহায়তা করে আসছেন।


পুলিশ জনগণের সেবক। এজন্য মহসিন চাকরির পাশাপাশি জনগণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখার প্রচেষ্টায় কাজ করে যাচ্ছেন। তবে কারো সহযোগীতায় নয়। নিজের বেতন থেকে কিছু অংশ অসহায় ও দরিদ্রদের জন্য ব্যয় করেন তিনি।


মহসিন চৌধুরী রামগঞ্জ থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ও চট্টগ্রাম জেলার চন্দনাইশের কানাইমাদারী গ্রামের মৃত আমিন শরীফ চৌধুরীর ছেলে।


খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৫ সালে রামগঞ্জ থানায় দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে মহসিন স্থানীয় অসহায় ও দরিদ্রদের সহযোগীতায় কাজ করে আসছেন। গরীব মেয়েদের বিয়ে, অসহায়দের চিকিৎসার খরচ চালিয়ে তিনি সেসব পরিবারের কাছের লোক হিসেবেও পরিচিতি পেয়েছেন। উপজেলাবাসী তাকে মানবিক পুলিশ হিসেবে চিনেন। ভালোবেসে জায়গাও দিয়েছেন মনের মনি কোঠায়।


জানা গেছে, সম্প্রতি ইমাম হোসেন নামে এক ছাত্র পথশিশুদের জন্য প্রচেষ্টা পাঠশালা প্রতিষ্ঠা করেন। এ পাঠশালাটি উপজেলার শিশু পার্ক সংলগ্ন একটি কক্ষ ভাড়া করে চালানো হচ্ছে। ইমাম হোসেন ছাড়াও রামগঞ্জ মডেল কলেজের কয়েকজন শিক্ষার্থী ওই পথশিশুদের পাঠদান করিয়ে আসছে। তারা অবসর সময় ওই পথশিশুদেরকে পড়ালেখা শেখানোর কাজেই ব্যয় করে। পার্টটাইম চাকুরি ও টিউশন ফি দিয়ে শিক্ষার্থীরা এ পাঠশালাটি পরিচালনা করছে। শিক্ষার্থীদের এমন মানবিক কাজের খবর পেয়ে এসআই মহসিনেরও পথশিশুদের পাশে দাঁড়ানের স্বদিচ্ছা জাগে। সেখান থেকেই পাঠশালার ৫০ জন শিশু শিক্ষার্থীর জন্য নিজ অর্থায়নে পোশাক তৈরি করে দিয়েছেন। এছাড়া সবসময় তাদের পাশে থেকে সহযোগীতার আশ^াস দিয়েছেন।


জানতে চাইলে রামগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মহসিন চৌধুরী বলেন, পুলিশে চাকরির পাশাপাশি অসহায়দের নিয়ে কাজ করার ইচ্ছা রয়েছে। সেখান থেকেই অসহায়দের সহযোগীতায় কাজ করছি। নিজ উদ্যোগেই আমার এই প্রচেষ্টা। তবে আমার ধারণা, এ প্রচেষ্টা অন্যদেরকেও অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর জন্য অনুপ্রাণিত করবে।