রামগঞ্জে ‘টাকার বিনিময়ে’ ছাত্রলীগের কমিটির প্রস্তুতি

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ১৩ অক্টোবর, ২০১৯ ৬:৫২ অপরাহ্ণ

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনকে ঘিরে ৫ টি ইউনিয়নে টাকার বিনিময়ে পুরনো তারিখে (ব্যাক ডেট) ‘পকেট’ কমিটি দেয়ার পাঁয়তারা চলছে।

অভিযোগটি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান ফয়সাল মাল ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান শুভ’র বিরুদ্ধে। এদিকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ওই ৫টি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি দেয়া বন্ধ করতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হয়।

রবিবার (১৩ অক্টোবর) কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্জের কাছে রামগঞ্জ সরকারি কলেজ শাখার সভাপতি মোরশেদুল আমিন বাবু এ অভিযোগ করেন। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক আহসান হাবিব অভিযোগটি গ্রহণ করেছেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, আগামি ৭ নভেম্বর রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনের ঘোষণা দেয় জেলা কমিটি। সম্মেলনকে প্রভাবিত করার লক্ষ্যে টাকার বিনিময়ে পুরনো তারিখে উপজেলার নোয়াগাঁও, ইছাপুর ও লামচর ইউনিয়নে কমিটি দেওয়ার পাঁয়তারা চলছে। এছাড়া চন্ডিপুর ও করপাড়া ইউনিয়নের কমিটি চলমান থাক সত্ত্বেও তা ভেঙে দিয়ে পকেট কমিটি দেওয়ার পাঁয়তারা করা হচ্ছে। কিন্তু দলীয় আইন অনুযায়ী সম্মেলনের তারিখের পর কোন কমিটি দেওয়ার এখতিয়ার নেই বলে জানা গেছে।

৭ নভেম্বরের সম্মেলন বাস্তবায়ন করতে ওই কমিটি গুলো দেওয়া বন্ধ করতে অভিযোগ পত্রে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের তিনজন নেতা জানায়, এক একটি ইউনিয়ন কমিটির নেতৃত্ব পেতে প্রার্থীদের কাছ থেকে ১ লাখ থেকে ৩ লাখ টাকা নেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান ফয়সাল মাল ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান শুভ জানায়, সম্মেলনের প্রথম অধিবেশন পর্যন্ত যেকোন শাখার কমিটি দেওয়ার এখতিয়ার তাদের আছে। টাকার বিনিময়ে পুরনো তারিখে নয়, কর্মী সম্মেলনের মাধ্যমে ইউনিয়ন কমিটিগুলো দেয়া হবে।

জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন শরীফ বলেন, অভিযোগের বিষয়টি শুনেছি। তবে সংগঠন বিরোধী কাজ করলে সম্মেলনের আগেই উপজেলা কমিটি ভেঙে দেওয়া হবে।