জেনে নিন কিভাবে গণপরিবহনে নারীরা নিরাপদ

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ১১ মে, ২০১৯ ২:২৪ অপরাহ্ণ

ঘরে ও বাইরে প্রতিনিয়ত নারীরদের কাজে অংশগ্রহণ বাড়ছে । পুরুষের সঙ্গে সমান তালে নারীরা দেশের অগ্রযাত্রায় নিজেদের অংশগ্রহণ বাড়ালেও নিরাপত্তার শংকা নিয়েই রাতে পথ চলতে হয় নারীদের।

গণপরিবহনসহ রাস্তায় চলাচলের সময় ধর্ষণসহ বিভিন্ন যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছেন নারীরা।

প্রতিদিনই খবরের কাগজ, টিভি ও অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে পাওয়া যাচ্ছে নারী ধর্ষণের খবর।

তবে বর্তমানে প্রচারিত খবর থেকে এটাই ধরে নেয়া যাচ্ছে যে ধর্ষণ ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। যা একটি দেশের জন্য কখনোই ভালো কোনো আভাস হতে পারে না।

সম্প্রতি কিশোরগঞ্জের একটি বাসে একজন নার্সকে ধর্ষণের পর তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় আবারো আলোচনায় এসেছে গণপরিবহনে নারীদের নিরাপত্তার বিষয়টি।

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাপরিচালক মোজাম্মেল হক চৌধুরী জানান, তাদের এক সমীক্ষা অনুযায়ী ২০১৮ সালে গণপরিবহনে ২১ নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন।

তবে রাস্তায় চলাচলের সময় নারীদের সর্তক থাকতে হবে। চলাচলের সময় কোনো কিছুতে সামান্য ঝুঁকি থাকলে সে কাজটি মোটেও করা যাবে না।

১. রাতে বাড়ি ফেরার সময় কখনোই খালি বাসে চড়া যাবে না। এছাড়া রাতে অনেক সময় দেরি হয়ে গেলেও খালি বাসে উঠা ও যেকোনো ধরনের প্রতিষ্ঠানের বাসে উঠা থেকে বিরত থাকুন।

২. কোন পথ দিয়ে যাচ্ছেন তা খেয়াল রাখুন। কোনো নির্জন রাস্তা বা ঝুঁকি আছে এমন কোনো রাস্তা দিয়ে চলাচল করবেন না।

৩. গণপরিবহনে চলাচলের সময় শ্রমিকদের আচরণের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। গণপরিবহন শ্রমিকদের আচরণ সন্দেহজনক হলে নিরাপদ স্থানে নেমে পুলিশের সহযোগিতা নিন।

৪. নির্জন এলাকা দিয়ে চলাচলের ক্ষেত্রে রাতে কখনোই একা গাড়িতে চড়বেন না।

৫. অনেক সময় দেখা যায় চেনা রুটে অল্প যাত্রী নিয়ে অচেনা বাস চলাচল করছে। পরিচিত প্রতিষ্ঠানের বাস ছাড়া ওঠবেন না।

৭. বাসে চড়ার আগে গাড়ির নম্বর প্লেট দেখে নিন।