ক্যাসিনো অর্থশালীদের জুয়ার আসর

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ৭:০১ অপরাহ্ণ

হঠাৎ বাংলাদেশে ক্যাসিনো শব্দটা ব্যাপক প্রচার পেয়েছে। এর আগে অনেকেই ক্যাসিনো সম্পর্কে অবগত ছিল না। চমকে যাওয়ারই কথা। অনেকেরই হাঁটার দূরত্বে ক্যাসিনোর অস্তিত্বের খবর জেনে অবাক হয়েছেন।

বাংলাদেশে ক্যাসিনো আইনত নিষিদ্ধ। তবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ক্যাসিনো আইন মেনেই চালু আছে। বিশ্বজুড়ে ক্যাসিনোর অর্থনীতিও অনেক বড়। পকেটে বিপুল পরিমাণ অর্থ নিয়ে ক্যাসিনোতে ছুটে যাওয়া মানুষের সংখ্যা মোটেই কম নয়।

তবে আমার বিষয় ক্যাসিনো না। ক্যাসিনো হচ্ছে অর্থশালীদের জুয়ার আসর। আমার বিষয় হচ্ছে জুয়া। আমাদের দেশে বিভিন্ন জায়গায় ব্যাপক আকারে জুয়া খেলা হচ্ছে। মাঝে মাঝে সংবাদে দেখা যায় জুয়ার আসর থেকে এতো জন আটক, জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ নানান ঘটনা।

তবে সেটাও আমার বিষয় না। আজ আমি বলবো বিভিন্ন দোকানে, পাড়া মহল্লায় খেলা নিয়ে যে জুয়া চলে তার কথা। খেলাধুলাকে আমরা বিনোদনের অংশ হিসেবে ধরি।

অনেকে টাস খেলে সেটাও বিনোদনের অংশ যদিও অনেকে বাজিতে খেলে। সেটা আবার জুয়ার আওতায়। তবে যারা টেলিভিশনের খেলা দেখে বাজি ধরে তাদের কি বলবো ? নিশ্চই তারা জুয়াড়ি।

বাংলাদেশে আইপিএল, বিপিএল সহ ফুটবল বিশ্বকাপে চলে পাড়া মহল্লার দোকানগুলোতে ব্যাপক জুয়া। সেখানে দেখা যায় কম বয়সি ছেলেদের সংখ্যাই বেশি। তবে বড়রাও বাদ যায় না। ছোটরা বড়রা সবাই সমন্বয় করেই খেলে। এখন বিষয় হচ্ছে এসব জুয়ার আসর তো আমাদের নাকের ঢগায় হচ্ছে এবং সবার সামনে।

অনেকেই মুখে দেশপ্রেমের কথা বলে তবে তারাই আবার দেশের বিরুদ্ধে বাজি ধরে। ছোট ছোট বাচ্চারা এই বলে কি হবে, আগামী ওভারে কতো হবে, ম্যাচ জিতবে কে এমন বিষয়ে বাজি ধরে। এসব বাজি ধরাকে কেন্দ্র করে তারা ছোট ছোট অনেক অপরাধ করে। অনেক সময় এ ছোট অপরাধ গুলো বড় আকারও ধারন করে। ঘটে বিভিন্ন বিশৃংঙ্খলা।

চুরি-ডাকাতি বৃদ্ধি পায়। সমাজ পড়ে সংকটাপন্ন। অনেকেই দোকানে চা খেতে গিয়ে পড়ে বিব্রতকর অবস্থায়। এ জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে বেড়ে যায় নেশাটাও। ছোট ছোট শিশুরা সিগারেট সেবনে আশক্ত হয়। আস্তে আস্তে দাবিত হয় বিভিন্ন নেশায়।

আমরা সমাজবিজ্ঞানে একটা বিষয় পড়েছি সামাজিকীকরন। একটা শিশু ভুমিষ্ট হওয়ার পর প্রথমে তার পরিবার থেকে শেখে এর পর সমাজ থেকে। যা অপ্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কেন্দ্র। এরপর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

আমরা যদি পরিবার ও সমাজ থেকে একটি শিশুকে কিছু না দিতে পারি, তাহলে সে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েও প্রকৃত শিক্ষা পাবে না। কারণ তার তো গোড়াতেই গলদ। তো মূল কথায় আসি। সমাজে যে ছোট ছোট অপরাদগুলো হচ্ছে সেগুলোতে আমরা কান দেই না, দেখেও না দেখার বান করি।

কিন্তু একসময় সে অপরাদগুলোই বড় আকার ধারন করে। তখন আমাদের করার কিছুই থাকে না। তবে বলবো সে অপরাধের ধায় কিন্তু আমরা এড়াতে পারি না। হ্যাঁ, যা বলছিলাম, পাড়া মহল্লায় খেলা নিয়ে যে জুয়া হয় তা এখন কিছুটা কম হলেও খেলাধুলার আন্তর্জাতিক বড় আসর গুলোতে এটা ব্যাপক আকারে ধারন করে। দোকানে দোকানে শহরে থেকে গ্রাম কোথাও বাদ যায় না এ জুয়া। সর্বত্র জনসম্মুখে চলে এ বাজি বা জুয়া।

তখন সমাজের সুশীল সমাজও চুপ থাকেন। কেউই প্রতিবাদ করে না। এ জুয়াই কিন্তু সমাজে বিশৃংঙ্খলা সৃষ্টি করে। যখন ক্যাসিনো নিয়ে এতো তোড়পাড় তখন আমি কেন এ ছোট জুয়া খেলা নিয়ে কথা বলছি অনেকের মনে এমন প্রশ্ন জাগতে পারে।

তাদের উদ্দেশ্যে বলবো, এ ছোট জুয়াই একসময় মহামারি আকার ধারন করবো। আর এসব বিষয় প্রতিরোধ নয়, প্রতিরোধ করতে গেলে সংঘর্ষ সৃষ্টি হচ্ছে। এগুলোকে মোটিভেট করতে হবে। দেখা গেছে যে জুয়া খেলে সে একটা ভদ্র ঘরে সন্তান ও শিক্ষিত, কিন্তু সে পাড়ার দোকানে বসে এ জুয়া খেলছে। আমার দেখা অনেকেই আছে যাদের সামাজিক অবস্থা ভালো তারাও এ জুয়ার সাথে জড়িত।

এবার একজনকে দেখলাম বৌয়ের গয়না বিক্রি করে সে এ জুয়া খেলতে এসে সব হারিয়েছে। এমন অনেক ঘটনা আছে। যারা সমাজ সংস্কারক, সমাজ নিয়ে চিন্তা করেন তাদের এসব বিষয়গুলো ভাবতে হবে। সব কিছু আইনপ্রয়োগ করে হয় না। কিছু বিষয় আছে সমাজ ব্যবস্থার উপর ভিত্তি করে।

তাই সামাজিকভাবে এগুলো দেখতে হবে। পরিবারের ব্যক্তিদেরও এসব বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিতে হবে। যাই হোক আমি হয়তো ব্যাপক আকারে বুঝাতে না পারলেও সংক্ষিপে কি বলতে চাচ্ছি সেটা বলতে পেরেছি।

আশা করি যারা এ লেখাটা পড়বেন তারা এ ছোট ছোট বিষয়গুলো একটি বিবেচনা করবেন। কিছু করতে হবে সেটা সে বিষয়ে আমার কোন মতামত নেই তবে আপনাদের বিবেকে যা করতে বলে তাই করবেন। অন্তত সমাজ অবক্ষনের হাত থেকে যে রক্ষা পায়। সবাই ভালো থাকবেন। সুখে থাকবেন।