কমলনগরে কাজী লাইসেন্সে প্যানেল প্রস্তুতে বিলম্ব

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ৬ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১:৫৯ অপরাহ্ণ

আমজাদ হোসেন আমু : লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের সাহেবের হাট ইউপিতে নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স প্রাপ্তির বিজ্ঞাপ্তি প্রকাশে প্রার্থীদের যাচাই-বাছাই কার্যক্রম হওয়ার ৭ (সাত) কার্যদিবস শেষ হলেও প্যানেল প্রস্তুতে বিলম্ব করা অভিযোগ উঠে কমিটির বিরুদ্ধে।

 

আবেদনকারী কয়েকজন জানান, গত (৭নভেম্বর) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স প্রাপ্তির আবেদনকারী ১৪ জনের মৌখিক ভাইভা ও কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করেন প্যানেল প্রস্তুত কমিটি। কিন্তু গত ২৫ দিনেও নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স প্রস্তুত কমিটি সরকারের নিকট প্যানেল প্রস্তুত করে পাঠাতে পারেনি।

 

আবেদনকারীর মধ্যে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বলেন, উপজেলা ভাগের দীর্ঘদিন গেলেও সাহেবের হাট ইউনিয়নে নিকাহ্ রেজিস্ট্রার (কাজী) নিয়োগ হচ্ছে না। অন্য ইউপি’র কাজী দিয়ে বড় অংশের ইউপির শত শত জনগণের নিকাহ্ রেজিস্ট্রী হচ্ছে। এতে প্রায় সময় নিকাহ্ রেজিস্ট্রীতে অনিয়ম, দুর্নীতি ও নানাবিধ সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। গত কিছুদিন পূর্বে নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স (কাজী)নিয়োগের বিজ্ঞাপ্তি প্রকাশ হলে আবেদন করি এবং উপজেলা নির্বাহীর কার্যালয়ে মৌখিক ভাইভা ও কাগজপত্র যাচাই-বাছাই হয়। কিন্তু গত ২৫ দিনেও কমিটি প্যানেল প্রস্তুত করে সরকারে নিকট প্রেরণ করেননি। বিধিমালায় উল্লেখ রয়েছে যাচাই-বাছাই করে সাত কার্যদিবসের মধ্যে তিনজনের একটি প্যানেল প্রস্তুত করে সরকারের নিকট প্রেরন করবে। যতটুকু জানলাম এখনো প্যানেল প্রস্তুত করে পাঠাইনি। এতে নানাবিধ বিলম্ব ও সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে মনে করছি। মুসলিম বিবাহ ও তালাক(নিবন্ধন) বিধিমালায় উল্লেখ্য রয়েছে, নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স প্রাপ্তির আবেদন শেষে প্রতিটি লাইসেন্সের অধীনে তিনজন আবেদনকারীর একটি প্যানেল প্রস্তুত করে উপ-বিধি(৪) অধীনে যাচাই-বাছাই করে সাত কার্যদিবসের মধ্যে সরকারে নিকট প্রেরণ করিবে।

 

উপ-বিধি(৫) অধীনে প্রেরিত প্যানেল থেকে একজনকে নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স এর জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহন করিবে। জানা যায়, গত ১১ অক্টোবর ২০২৩খ্রি: ২৫৫ স্মারকে সাব-রেজিস্ট্রার কর্মকর্তা(নিকাহ্ রেজিস্ট্রার) কমিটির সদস্য সচিবের স্বাক্ষরিত বিজ্ঞাপ্তিতে উপজেলার সাহেবের হাট ইউনিয়নে নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স প্রাপ্তির দরখাস্ত ২৬ অক্টোবর ২০২৩খ্রি:পর্যন্ত আহবান করা হয়। প্যানেল প্রস্তুত কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ আরমান বলেন, নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স (কাজী) নিয়োগে একাধিক প্রার্থী আবেদন করেন। প্রতিটি প্রার্থীর কাগজপত্র অধিকতর যাচাই-বাছাই কার্যক্রম চলছে। উপজেলার সাহেবের হাট ইউনিয়ন মেঘনার ভাঙনে প্রায় তৃতীয়াংশ ভেঙে গেছে। যারা নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করেন। তাদের মধ্যে প্রায় প্রার্থী ভাঙনে কবলিত। যার কারণে অধিকতর যাচাই-বাছাই করতে হচ্ছে। তবে খুব দ্রুত প্যানেল প্রস্তুত করে সরকারে নিকট প্রেরন করা হবে।

 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সূচিত্র রঞ্জন দাস বলেন, নিকাহ্ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স (কাজী) নিয়োগে প্যানেল প্রস্তুতে প্রার্থীদের যাচাই-বাছাই শেষ পর্যায়ে। প্রার্থীদের মধ্যে স্থায়ী-অস্থায়ী বাসিন্দা নিয়ে বির্তক দেখা দিয়েছে। যার কারণে সঠিকভাবে যাচাই-বাছাই হচ্ছে।

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন