আবরার হত্যা: দায় কী শুধু ছাত্রলীগের !

প্রতিবেদক : এমএন /আর
প্রকাশিত: ৯ অক্টোবর, ২০১৯ ৪:৫৩ অপরাহ্ণ

পাঁচ-দশ মিনিট নয়। ৫ ঘন্টার বেদম প্রহারে নিহত হয় আবরার ফাহাদ। দেশের সর্ব্বোচ বিদ্যাপিঠ বুয়েটে এমন পৈশাচিক হত্যাকান্ডে স্তম্ভিত দেশ।

দেশের পক্ষে ফেসবুকে লেখায়, ৬ অক্টোবর দিবাগত রাতে মেধাবী ছাত্র আবরার খুন হলেন। এ জঘন্য খুনের পর, গণমাধ্যমে প্রকাশ হচ্ছে বুয়েট শেরে বাংলা হলসহ হলগুলোর টর্চার সেলের খবর।

এ ‘টর্চার সেল’গুলো পরিচালনার অভিযোগ রয়েছে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রসংগঠনের কিছু বিপথগামী নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে। প্রশ্ন হচ্ছে, আবরার ফাহাদ হত্যার দায় কি শুধু ছাত্রলীগের ?

গণমাধ্যমের খবর ও সাধারন শিক্ষার্থীদের বক্তব্য মতে, ‘টর্চার সেলে’ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাতে নির্যাতনের শিকার বেশ কয়েকজন সাধারন শিক্ষার্থী। তাদের অনেকেই প্রানে বেঁচে গেলেও, রক্ষা হয়নি আবরার ফাহাদের।

দীর্ঘদিন এ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চললেও কেন ব্যবস্থা নেননি হল প্রভোষ্ট। হলে নিজের সন্তানতুল্য ছাত্র খুন হলো, তার জানাযার নামাজ হলো। শেষবারের মতো ছাত্রের নিথর দেহ দেখার জন্য পাষন্ড ভিসি ক্যাম্পাসে আসলেন না।

হত্যাকান্ডে জড়িতরাও মেধাবী ছাত্র । এদেরকে বিপথে কে নিল ?

ছাত্রলীগ কিংবা আওয়ামী লীগের কোন নেতা এমপি মন্ত্রীর অনুসারী এরা। ক্ষমতার দ্বম্ভে এরা কেন ভুলে বসেছিলো, এদের উজ্জল ভবিষ্যত কিংবা ছাত্রলীগের ইতিহাস ঐতিহ্য।

এরা কেন মেধাবী হয়েও মনুষত্ব্যহীন হয়ে পড়েছিল দূর্নীতিতে নিমজ্জিত সমাজে। হত্যায় জড়িত শিক্ষার্থীদের পরিবার গুলো কেন সন্তানদের ছাত্রজীবন কিংবা রাজনৈতিক জীবনের খোঁজ নেওয়ার প্রয়োজনীয়তা মনে করেননি।

নাকি অভিবাবকরা সন্তানদের ছেড়ে দিয়েছিলেন, অপরাজনীতি সিঁড়ে বেয়ে টাকা কামানোর অন্ধকার মিছিলে। এ দায় শুধু ছাত্রলীগের নয়। দলদাস প্রভোষ্ট ভিসি তথা বুয়েট কর্তৃপক্ষের। যারা এখনো শিক্ষক হতে পারেনি।

এ দায় রাজনৈতিক অপসংস্কৃতির । এ দায় বিপথে নিমজ্জিত শিক্ষার্থীদের পরিবারের। এ দায় রাষ্ট্রের। এ দায়, দেশপ্রেমিক হতে না পারা নাগরিকের।

লেখক:

আবুল কালাম আজাদ, সাংবাদিক, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী।