অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের ভয়ে আতঙ্কে গ্রামবাসী

প্রতিবেদক : এমএন/ এমএস
প্রকাশিত: ৩১ জুলাই, ২০২১ ৫:৪০ অপরাহ্ণ

নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালী সদর উপজেলার উত্তর শুল্লুকিয়া গ্রামে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের ভয়ে গ্রামবাসীদের দিন কাটছে আতঙ্কে। অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা এলাকায় প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিয়ে এলাকাবাসীকে জিম্মি করে রেখেছে। মাদক সেবন ও মাদক ব্যবসা, অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে দোকানে চাঁদা আদায়, চাঁদা না দিলে লুটপাট করে নিয়ে যাচ্ছে দোকানের মালামাল।

শনিবার দুপুরে কালাদরপ ইউনিয়নের আমিন নগর বাজারে লুটপাটের প্রতিবাদ এবং সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার দাবিতে গ্রামবাসী ও ব্যবসায়ীরা মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন।

বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী ও ব্যবসায়ীরা জানান, গত সোমবার(২৬ জুলাই) রাত দেড়টার দিকে আমিন নগর বাজারে কয়েক ঘন্টাব্যাপি তান্ডব চালিয়ে পাঁচটি দোকান ভাংচুর করে নগদ টাকাসহ প্রায় বিশ লাখ টাকার মালামাল লুটপাট করে সন্ত্রাসীরা। তারা তিনটি দোকানের টিভি, ফ্রিজ, গ্যাসের চুলা, মুদি মালামাল সহ চাল-বেড়া ও খুঁটি খুলে নিয়ে যায়। এ সময় এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করতে হামলাকারীরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে।
লুটের ঘটনায় বাধা দিতে গেলে অন্তত দশজনকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে তারা ।

পরে স্থানীয় এক ব্যক্তি ৯৯৯ এ ফোন দিলে সুধারাম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় তাদের কাছ থেকে একটি ফ্রিজ উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে আহসান উল্ল্যাহ(৪০),এনায়েত উল্ল্যাহ মাঝি(৫০) ও আবু জাকের(২৮) নামে তিন হামলাকারীকে আটক করে ৫৪ ধারায় আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। এঘটনায় বৃহস্পতিবার সুধারাম থানায় ক্ষতিগ্রস্থ আয়েশা বেগম বাদি হয়ে আহসান উল্ল্যাহকে প্রধান আসামী করে ৩২ জন নামে মামলা দায়ের করেছেন।

আমিন নগর রহমানীয়া ইসলামিয়া কওমী মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা নোমান সিদ্দিকি জানান, প্রতিরাতে বোমা ও গুলির শব্দে ছাত্ররা ঘুম থেকে জেগে উঠে আতঙ্কিত হয়ে পরে। নিরাপত্তাহীনতার কারণে ছাত্ররা মাদ্রাসায় থাকতে অনিহা প্রকাশ করে।
ভুক্তভুগী নুরুল আমিন জানান, কয়েকমাস আগে কিছু সন্ত্রাসী আমার দোকানে আগুন লাগিয়ে দেয়। ঘটনার রাতে আমার ওষুধের দোকান থেকে ৫/৬ লাখ টাকার ওষুধ লুট করে নিয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় বাসিন্দা কামাল উদ্দিন জানান, শতাধীক অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী গভীর রাতে গুলি ও বোমা ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে বাজারের পাঁচটি দোকান লুট করে নিয়ে যায়।
ইউপি সদস্য আবুল কাশেম জানান, অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী আহসান উল্ল্যাহ, মাইন উদ্দিন, সিরাজ, এরশাদ সহ সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসীরা আমার এলাকায় মাদক সেবন ও ব্যবসা করে। তারা প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে ঘোরাফেরা করে ও চাঁদার জন্য বিভিন্ন দোকানে হামলা চালায়।

 

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহেদ উদ্দিন জানান, সন্ত্রাসী হামলার খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। এ সময় হামলা ও ভাংচুর করার অভিযোগে ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে আটক করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী বাদি হয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

 

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন